মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে মাসে লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করুন - কোনো ইনভেস্ট ছাড়া - Btc Bangla Pro

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম 2022

হ্যালো বন্ধুরা, সকলে কেমন আছেন? আশা করি আপনারা সকলেই ভাল আছেন। অনেকের ইচ্ছা থাকে অনলাইন থেকে মাসে ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করার  কিন্তু তারা অর্থ আয় করতে পারে না শুধুমাত্র তাদের কম্পিউটার না থাকার কারণে। তারা মনে করে কম্পিউটার ছাড়া অনলাইনে প্রফেশনাল কোনো কাজ করা যায় না। প্রফেশনাল যে কোনো কাজ যেমন: অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি করতে কম্পিউটারের প্রয়োজন হয়। কিন্তু অনলাইনে এমন অনেক প্রফেশনাল কাজ রয়েছে যে কাজগুলো আপনি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে করতে পারবেন এবং মাসে ভালো পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন। এমনকি মাসে লাখ টাকা আয় সম্ভব৷ তো আজকের আর্টিকেল আমরা মোবাইল দিয়ে কোনরকম ইনভেস্ট ছাড়া মাসে লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করা যায় এমন পাঁচটি প্রফেশনাল কাজ সম্পর্কে আলোচনা করব। তো ধৈর্য সহকারে সম্পন্ন আর্টিকেলটি পড়ুন।


অনলাইন থেকে মোবাইল দিয়ে আয় করার মতো প্রফেশনাল পাঁচটি কাজ 

Cpa, Affiliate Marketing: অনলাইন থেকে টাকা আয়ের জনপ্রিয় একটি সেক্টর হচ্ছে Cpa এবং  Affiliate Marketing। অনেকেই মাসে লাখ লাখ টাকায় আয় করছে Cpa এবং  Affiliate Marketing করে। Cpa এবং Affiliate মার্কেটিং মূলত দুটি সিমিলার বিষয়। Affiliate মার্কেটিং এ প্রোডাক্ট বিক্রি করে দেওয়ার মাধ্যমে আয় করতে হয় এবং Cpa মার্কেটিং এ প্রোডাক্ট বিক্রি না করেও কমিশন পাওয়া যায়। আপনি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে Cpa এবং Affiliate মার্কেটিং এর কাজ শুরু করতে পারেন এবং মাসে ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারেন।

YouTube : অনলাইন থেকে আয় করার আরেকটি বড় সেক্টর হচ্ছে ইউটিউব। আমাদের দেশে এমন অনেক ইউটিউবার রয়েছে যারা মাসের লাখ লাখ টাকায় করে। আপনি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইউটিউবে কাজ করা শুরু করে দিতে পারেন। এমনও অনেক বড় বড় ইউটিউবার রয়েছে যারা প্রথম অবস্থায় মোবাইল ফোন দিয়ে ইউটিউব এর যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীতে ইউটিউবের টাকায় কম্পিউটার কিনে প্রফেশনাল ভাবে কাজ করে।

কিভাবে ইউটিউব যাত্রা শুরু করবেন তার বেসিক ধারণা: 

• প্রথমে আপনি চিন্তা ভাবনা করুন ইউটিউবে কোন বিষয় বা ক্যাটাগরি নিয়ে কাজ করবেন।

• তারপর সেই ক্যাটাগরি বা বিষয়ের উপর ভিত্তি করে একটি প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করুন আপনার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে।

• তারপর সেই চ্যানেলে নিয়মিত ইউনিক ভিডিও আপলোড করা শুরু করুন।

• যখন আপনার চ্যানেলে 1000 সাবস্ক্রাইবার এবং 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম পূরণ হয়ে যাবে তখন আপনি গুগল এডসেন্স এর জন্য আবেদন করুন।

• আপনি যদি গুগল এডসেন্স এর সকল রলস বা নীতি অনুসরণ করে কাজ করেন তাহলে অবশ্যই আপনি আপনার চ্যানেলে গুগল এডসেন্স পেয়ে যাবেন।

•  তারপর থেকেই আপনার ইনকাম শুরু হবে।

• তারপর যখন আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলো মানুষ দেখতে থাকবে তখন আপনার ভিডিও তে এড সো হবে এবং আপনার ইনকাম গুগোল অ্যাডসেন্সে যুক্ত হতে থাকবে।

• যখন আপনার গুগল এডসেন্স এর মূল ব্যালেন্সে ১০ ডলার পূর্ণ হবে তখন এডসেন্স কর্তৃপক্ষ আপনার পোস্ট অফিসে একটি পিন কোড পাঠাবে।

• তারপর সেই পেনকুটটি আপনার এডসেন্সে বসিয়ে এডসেন্স একাউন্টের পিন ভেরিফাই করে নিন এবং ব্যাংক একাউন্ট যোগ করো।

• তারপর যখন আপনার এডসেন্স একাউন্টের মূল ব্যালেন্সে 100 ডলার পূর্ণ হবে তার পরবর্তী মাসের 21 থেকে 26 তারিখের ভিতরে আপনার অ্যাডসেন্সের টাকা ব্যাংকে চলে যাবে।

বন্ধুরা এই ছেলে ইউটিউব থেকে আয় করার বেসিক ধারণা। আর আপনি ইউটিউব এর সকল কাজ আপনার হাত থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভালোভাবে করতে পারবেন। আপনার কাজ করতে কোন সমস্যা হবে না। ইউটিউব থেকে আরো কিছু উপায় আয় করা যায়:

স্পনসর: আপনার চ্যানেল টি বড় হলে বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে আপনি স্পন্সর পাবেন।

Cpa এবং Affiliate Marketing : Cpa এবং Affiliate মার্কেটিং থেকে আয় করার জন্য প্রয়োজন ট্রাফিক বা ভিজিটর। তো আপনার চ্যানেলটিকে কাজে লাগিয়ে ইউটিউব থেকে Cpa এবং Agfiliate মার্কেটিং করার মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

এছাড়া আরো কিছু উপায় ইউটিউব থেকে ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করা যায়।মূল কথা হচ্ছে ইউটিউবে আপনাকে ভালো কোয়ালিটির ভিডিও বা কনটেন্ট আপলোড করতে হবে। আর আপনার মেধা থাকলে অবশ্যই আপনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভালো কোয়ালিটির কনটেন্ট তৈরি করতে পারবেন।  ভালো কোয়ালিটির কন্টেন্ট তৈরি করলে মানুষ আপনার ভিডিওগুলো দেখতে পছন্দ করবে এবং দিন দিন আপনার চ্যানেল গ্রো হবে। আমি মনে করি আপনি যদি মোবাইল দিয়ে ইউটিউবে কাজ করেন এবং ভালো কোয়ালিটির কনটেন্ট আপলোড করেন তাহলে মাসে লাখ টাকা আয় করা আপনার জন্য কোন ব্যাপার হবে না। তার জন্য অবশ্যই আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে এবং একটু সময় লাগবে।

Facebook : অনলাইন থেকে টাকা আয়ের আরেকটি বড় সেক্টর হচ্ছে ফেসবুক। আপনি যদি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আশা করি আপনি ফেসবুকের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে ২০২২

Facebook Watch: এখন ইউটিউবের মতো ফেসবুকে ও ভিডিও আপলোড করে আয় করা যায়। আপনি একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করে সেখানে নিয়মিত ইউনিক কন্টেন্ট আপলোড করবেন। যখন আপনার পেজটি বড় হয়ে যাবে এবং ফেসবুকের রুলস সম্পূর্ণভাবে আপনার অনুসরণ করা হবে তখন আপনি আপনার পেজটি মনিটাইজেশন করতে পারবেন এবং সেখান থেকেও আয় করতে পারবেন। বর্তমানে অনেক মানুষ এখন ইউটিউবের মত ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে এবং সেখান থেকেও ভালো পরিমাণে অর্থ আয় করে। 

Facebook Group or Page: ফেসবুক গ্রুপ এবং পেজ থেকে আয় আর ও কিছু উপায়:

মূল কথা হচ্ছে ফেসবুক গ্রুপ এবং ফেসবুক পেজে রয়েছে ট্রাফিক। বর্তমানে ভিজিটর বা ট্রাফিককে বলা হয় সোনার হরিণ। আপনি ফেসবুক পেজ বা ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে বিভিন্ন ভাবে আয় করতে পারবেন। যেমন:

• স্পন্সর এর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

• নিজস্ব প্রোডাক্ট বিক্রির মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

• এফিলিয়েট এবং সিপিএ মার্কেটিং করার মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

বন্ধুরা এ ছিল ফেসবুক থেকে আয় এর সংক্ষিপ্ত ধারণা। আপনি উপরোক্ত সবগুলো কাজ আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন এর মাধ্যমে করতে পারবেন। 

Content Writing, Content Rewrite, 

মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমে আয় করার জনপ্রিয় একটি উপায় হচ্ছে Content Writing বা  Content Rewriting। 

আপনি বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে 5 থেকে 50 ডলারের বিনিময়ে কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ বা কনটেন্ট Rewriting এর কাজ শুরু করতে পারেন। এমন ও অনেক লোক রয়েছে যারা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কনটেন্ট রাইটিং  করে এবং তারা মাসে 200 থেকে 300 ডলার পর্যন্ত আয় করে।

Airdrop : অনলাইন থেকে টাকা আয়ের এর আরেকটি আরেকটি জনপ্রিয় উপায় হচ্ছে Airdrop। 

Airdropকি

সকলকে প্রকারের ক্রিপ্টোকারেন্সি যেমন: বিটকয়েন, লাইট কয়েন, ডগি কয়েন ইত্যাদি মার্কেটে আসার পূর্বে বিভিন্ন ইভেন্টের মাধ্যমে তাদের কয়েন গুলো মানুষকে  গিভওয়ে করে থাকে শুধুমাত্র তাদের কয়েনগুলো পরিচিতি পাওয়ার জন্য।

Airdropযেভাবে কাজ করবেন?

আপনি শুধুমাত্র তাদের এ ইভেন্টে যোগ দান করবেন এবং সেখান থেকে কয়েন উপার্জন করবেন।তারপর সে কয়েনটি যখন মার্কেটে পরিচিতি লাভ করবে  তখন সে কয়েন গুলো বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করবেন। এতে করে আপনার কোন রকম পরিশ্রম করতে হবে না। ইভেন্টে জয়েন বলতে বোঝানো হয়েছে: কয়েন গুলোর অফিশিয়াল সোশ্যাল মিডিয়া যেমন: টুইটার, ফেসবুক, ইত্যাদি তে জয়েন করবেন। আর সেই কয়েন গুলো আপনি পাবেন Trust Wallet এর মাধ্যমে। এয়ার্ড্রপ নিয়ে বিস্তারিত ইউটিউব থেকে ধারণা নিতে পারেন এবং কাজ করা শুরু করে দিতে পারেন৷ কাজ করা বলতে আপনি নিয়মিত বিভিন্ন Airdrop এর ইভেন্টে যোগ দান করবেন।

Airdrop থেকে মাসে লাখ টাকা আয় :

অনলাইনে যত রকমের কাজ রয়েছে যেমন: Earning app, Website, Cpa Marketing এ কাজ ইত্যাদিতে যত রেফার করার মাধ্যমে যত আয় করা যায় তার থেকে পাঁচগুন বেশি আয় করা যায় Airdrop এ রেফার করার মাধ্যমে। মানে Airdrop এ রেফার কমিশন অনেক বেশি। ত আপনি Airdrop নিয়ে একটি YouTube Channel তৈরি করতে পারেন। যেখানে বিভিন্ন Airdrop নিয়ে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করেন। এতে করে আপনার YouTube থেকে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমেও আয় হবে অপরদিকে ভিডিও দেখে যারা আপনার রেফার লিংক থেকে Airdrop এ জয়েন হবে সেখান থেকে আপনার অনেক রেফার কমিশন ও আয় হবে। এমন ও অনেক Airdrop রয়েছে যেখানে প্রতি রেফারে ৫-১০$ ডলার পর্যন্ত দিয়ে থাকে। মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করার এটি একটি সেরা উপায়। 

তো বন্ধুরা এই ছিল মোবাইল দিয়ে প্রফেশনাল ভাবে অনলাইনে আয় করার সেরা পাঁচটি কাজের তালিকা।আশা করব উপরোক্ত কাজগুলো করার মাধ্যমে আপনি অনলাইন থেকে মাসে লাখ টাকার বেশি ও আয় করতে পারবেন।

2 Comments

  1. অনলাইন ইনকামের বিষয়টি অনেক যুগোপযোগী বলে মনে হয়েছে।

    ReplyDelete
Post a Comment
Previous Post Next Post